1. admin@mannanpresstv.com : admin :
কবি এম.এ.মান্নান.মান্না এর কবিতার বই // শিশিরের ফোঁটা - মান্নান প্রেস টিভি
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০২:১৫ অপরাহ্ন

কবি এম.এ.মান্নান.মান্না এর কবিতার বই // শিশিরের ফোঁটা

এম.এ.মান্নান.মান্না
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৪ জুলাই, ২০২২
  • ৫৬ Time View

শিশিরের ফোঁটা
এম.এ.মান্নান.মান্না

উৎসর্গ:-যে আমাকে সব সময় ছোট ভাইয়ের মতো আগলে রেখেছেন, আমার প্রিয় ওস্তাদ মাও নুুরুল আমিন মোল্লাকে।


তোমাকে এখনো মিস করি
এম.এ.মান্নান.মান্না
তুমি আজ কেমন আছো,জানতে খুব ইচ্ছে হয়
জানি তুমি ভালো থাকবে,তবুও মনের আকুলতা
তোমাকে জানতে খুব ইচ্ছে করে।
এহান প্রভুর কাছে আমার এআকুলতা
তুমি ভালো থাকো সুখে থাকো
হৃদয় উজার করা এই ব্যকলতা।
তুমি হৃদয়ে আছো,মনে আছো,প্রানে আছো
আছো জিবনের প্রতিটি স্বপ্নের গড়া
ভালোবাসায় প্রতিটি পথ চলায়।
তবুও জানতে খুব ইচ্ছে কওে কেমন আছো
তুমি কি ভালো আছো প্রিয়,
এখনো কি মনে পড়ে আমায়,
এখনো কি অপেক্ষা করো আমার জন্য
নিরব রাত্রে গভীরে।
তারিখ:-১৫/১২/২০১৮ ইং

স্বাধীনতা তুমি
এম.এ.মান্নান.মান্না
স্বাধীনতা তুমি আমার স্বাধীনতা তুমি
তুমি থাক চির অম্লান বাংলার মাটিতে।
স্বাধীনতা তুমি আমার স্বাধীনতা তুমি
তুমি থাক রক্তে গড়া দেশটাতে।
স্বাধীনতা তুমি আমার স্বাধীনতা তুমি
তুমি থাক শত ভাইয়ের প্রাণ হারানো দেশটাতে।
স্বাধীনতা তুমি আমার স্বাধীনতা তুমি
তুমি থাক শত বোনের ভাই হারানো
কান্নার রোষে।
স্বাধীনতা তুমি আমার স্বাধীনতা তুমি
তুমি থাক রবী ঠাকুরের জাতীয় সংগীতে।
স্বাধীনতা তুমি আমার স্বাধীনতা তুমি
তুমি থাক ত্রিশ লক্ষ শহীদের রক্তে গড়া দেশটাতে


তুমি মুজিব
এম,এ,মান্নান,মান্না
আবার আসো ফিরে এই বাংলায়
হে শ্রেষ্ট বীর শেখ মজিব।
আবার তোমার হয়েছে দরকার
সবুজ বাংলার গায়।
লাখো জনতা আবার তোমায়
কাছে পেতে চায়।
এখনো তোমার বজ্্র কন্ঠ
সবার কানে বাঁজে।
তোমার কন্ঠ হৃদয় নিয়ে
সামনে এগিয়ে চলে।
তুমি আছো তুমি থাকবে
সবুজ বাংলার গায়।
লাখ জনতা আবার তোমায়
কাছে পেতে চায়।
তোমার জন্য বাংলার মানুষ
জিবন দিয়েছে অকাতরে
আবারও তোমার সেই বজ্র কন্ঠ
শুনতে চায় তারা প্রানভরে।


আলেয়ার আলো
এম.এ.মান্নান,মান্না
দু চোখ বুজে অন্ধকারে যখন আমি
নিরব নিভৃতে গভীর যামীনিতে।
দুহাত বাড়িয়ে শুধু খুজি
এই বুজি পেলাম সুখের অট্রালিকা।
সুখ কেবলী আমার শুধু মরিচিকা
মনে হয় তাহা কপাল থেকে হারিয়ে গেছে।
কেবলী তাহা সোনার হরিন হয়ে ধরা দেয়
সুখ নেই সুখ নেই কোথাও শুধুই ধোকা।
আলেয়ার আলো ভেবে পিছে দেীড়ে
কি লাভ যদি নাই থাকে কপালে
সোনার হরিন কি ছোয়াঁ যায় না ধরা যায়]
নাকি তা কখনো তা ধরা দেয় বাস্তবে।
০১.০৭.২০০৯ ইং


তুমি কাছে নেই
এম.এ.মান্নান.মান্না
তুমি আজ কাছে নেই
ভালো লাগে না।
মনটা আমার উড়ো উড়ো
হয় ভাবনা।
বাব বার মনে পড়ে শুধুই তোমায়
হৃদয় আমার করে হাহাকার।
তোমায় দুরে রেখে শুধুই মন কেনো কাঁদে
ভালোবাসা শুধুই কি একেই বলে।
তোমার ভালোবাসা হৃদয় আমার
প্রতিটা রক্ত কণায় ভাসে,
তুমি দুরে থেকো না প্রিয়
হৃদয় আমার ঠান্ডা করো তুমি কাছে এসে।
তারিখ-১৮/০১/২০০৯ইং

হৃদয় ভাঙ্গা
এম.এ.মান্নান.মান্না
তোমাকে দেখেই মনে পড়ে গেলো
আমার হৃদয় ভাঙ্গার কথা।
দুচোখে অশ্রু ঝরে নিরবে
বুকে লাগে ব্যথা।
আমাকে তুমি কাঁদিয়ে গেলে
ভাবলে না তুমি কোন কথা।
তুমি সুখে থাকে প্রিয়তমা
আমি থাকি অশ্রু গাথা।
ভালোবাসা কি ছিল আমার ভুল
শুধু আমার একা,
তোমার কি কোন ছিলো না ভুল
হৃদয় গড়ার কথা।
তারিখ-১৯.০১.২০০৯ ইং


কাঁশবন
এম.এ.মান্নœান.মান্না
আকাশে যখন মেঘ উঠে
সাদা বকেরা ডানা মেলে উড়ে,
ঝির ঝির বৃষ্টির মাঝে
আকাঁশ সেজেছে রংধনুর সাজে।
মনের মাধুরী মিশানো রঙ্গে
কাশঁবন মাঝে বাবুই পাখি বাসা বাধেঁ,
কাশঁবন হাওয়ায় দোলে
রিমঝিম বৃষ্টি নামে অঝোর ধারায়।
অথৈ নদীর দুকুল বয়ে হারিয়ে যায়
অসংখ্যা পাল উড়ানো ডিঙ্গি নৌকা।
নদীল দুকুল দাড়িয়ে আছে
অসশ্র হিজল গাছের সারি
মনের মনি কোঠায় এঁেকছি
বাংলার এই আল্পনা।
তারিখ-০৩.০৬.২০০৯ ইং

প্রিয়তমা তুমি আছো
এম.এ.মান্নান.মান্না
প্রিয়তমা তুমি আছো
প্রভাতের সুর্যের রক্তিম আভায়
প্রচন্ড বিকালের মনোরম দৃশ্যে।
প্রিয়তমা তুমি আছো
মেঘহীন আকাশের পুর্নিমার চাঁদে,
আছো তুমি দিগন্তের সীমাহীন নিলে।
প্রিয়সী তুমি আছো
বসন্তের কোকিলের মধুর কন্ঠে,
ফুটন্ত গোলাপের সৌরভ নিয়ে
ঘাষেঁর ডগায় শিশিরের মতো
অন্ধকারে জোনাকী ফোঁকার আলোয়।
মায়াবীনি তুমি আছো
সমুদ্র উত্তাল তরঙ্গের মাঝে,
বর্ষার অবিরাম বৃষ্টির তালে
প্রিয়তমা তুমি আছো তুমি থাকবে
আমারী হৃদয়ের ছোট্র তাজমহলে।
তারিখ-০৫/০৫/২০০০ইং

ভেঙ্গে গেছে মন
এম.এ.মান্নান.মান্না
কাঁচের পুতুলের ন্যায় ভেঙ্গে গেছে মন
কখনো জোড়া লাগবে না আর।
দু চোখের জলে বান ছুটেছে
কখনো মনে হয থামবে না আর,
ন্ধদয়ের সাগরে ঝড় বইছে
ফুটে উঠেছে সব বেদনা
বুকের যত বেদনা বেরিয়ে গেছে
কখনো আর থামবে না কান্নাঁ।
ভালোবাসার ্ঐ পাখিটার ডানা ভেঙ্গে গেছে
কখনো সে আর উড়বে না।
মধুর সুরে গান করার মুড হারিয়ে গেছে
কখনো সে আর ডাকবে না।
প্রকাশিত লাকসাম বার্র্তা-১৯/০৭/২০০০ ইং

১০
আমার এমন আকুল তোমারী গানে
এম.এ.মান্নান.মান্না
তোমার মুখটা কেবলী
ভেঁসে উঠে মনে।
হৃদয় আমার কেড়েঁ নিলে
তোমারী গানে।
তোমারী ঐ গানের সুর
এখনো কানে যেন বাজে।
আমি যেন হারিয়ে গেছি
তোমারী মাঝে।
তোমাকে কখনো ভুলবার নয়
থাকবে তুমি এ প্রানে
আমারী এমন বার বার ছুটে যায়
তোমারী গানে।
তারিখ-০২/১০/২০০২ ইং
১১
ফিরে এসো প্রিয়তমা
এম.এ.মান্নান.মান্না
প্রিয়তমা ফিরে এসো ফিরে এসো হৃদয়ের আঙ্গিনায়
যেওনা আমাকে একলা ফেলে দুরে।
তুমি পাশে নেই যেন পৃথিবীটা অন্ধকার
ঘুমোট অন্ধকারে চেয়ে গেছে এমন
তুমি নেই যেন ভুতরে বাড়ি হয়ে গেছে আমার এ হৃদয়।
তোমারী অভাবে এমন কাঁদে, নিরবে দুচোখে অশ্রু ঝরে
ফিরে এসো প্রিয়তমা আমারী কাছে,যাবে না কখনো দুরে
বলো না হাতটি ধরে।
একেমন তোমার অভিমান চলে গেলে নিরবে
একটুও পিছন ফিরে দেখলে না,
আমার এমন নিরবে কাঁদে শুধু কাঁেদ শুধু তোমারী অভাবে,
দোহাই তোমার প্রিয়তমা ফিরে এসো
এবুকের পাঁজর ভেঙ্গে যেওনা।
আমার এভুলকি ক্ষমা করা যায় না।
এসোনা আবার তুমি এবুকে
মুছে দাও দুচোখের অশ্রু
ফিরে এসো প্রিয়তামা যেওনা দুরে
তোমার জন্য ভালোবাসা থাকবে জনম জনম ধরে।
তারিখ-০৭/০৫/২০০২ ইং
১২
এখনো বসে থাকি তুমি আসবে বলে
এম.এ.মান্নান.মান্না
এখনো বসে থাকি তুমি আসবে বলে
কলসি কাঁেধ নিয়ে আসবে কল পাড়ে,
আমাকে দেখেই একটু হাসি দিবে
যে হাসিতে এহৃদয় শিহরণ জাগাবে।
এখনতো তোমাকে দেখাই যায় না
যেন হারিয়ে গেছো তুমি কোনো গভীর অরন্যে।
তোমার কমল হাতের স্পর্শ কতয়ে মধুর
তোমার মুখের ভাষা কতযে হৃদয় ছোঁয়া
এমন পেতে চায় শুধুই তোমায়।
তুমি আসবে বলে দাড়িঁয়ে থাকি তোমার পথ পানে
নেই তুমি নেই কোথাও খুজে পাইনা তোমায়,
তুমি যেন অশরীরী আত্মা হয়ে পালিয়ে গেলে
না হয় অবশ্য তোমাকে দেখতাম
তৃষ্ণার্থ এচোখের তৃষ্ণা নিবারন করতাম
আমি দাড়িঁয়ে থাকবো অনন্ত কাল
শুধু তোমারী অপেক্ষায়।
তারিখ-০৭/০৫/২০০২ ইং
১৩
প্রথম দেখায় ভালোবাসা
এম,এ,মান্নান,মান্না
তোমার মিষ্টি হাসি এত সুন্দর কেন
এপ্রানটা যেন হারিয়ে যায়।
নিমিষে এ মনটা ব্যাকুল হয়ে
তোমায় মুখটা হৃদয়ে আকঁতে চায়।
তুমি হাসিলে যেন মেঘাচ্ছন্ন আকাশে
বিদ্যুৎ চমকায়।
তোমাকে দুনয়নে দেখলে
প্রানহীন এদেহে প্রান ফিরে পায়।
জানি না, তাকে কি বলে
প্রেম নাকি ভালোবাসা।
তুমি কাছে আসলে আমি আড়ষ্ট হয়ে যাই
হারিয়ে ফেলি আমি মুখের ভাষা।
একেঁই কি বলে ভালোবাসা নাকি ভালোলাগা
নাকি চিন্তা চেতনা সব হারিয়ে
দুজন মুখোমুখি বসে চোখে চোখে কথা বলা
মনে হয় একে বলে প্রথম দেখায় ভালোবাসা।
তাং-২০.০৪.১৮ ইং
১৪
*একুশ মানে অহংকার
এম.এ.মান্নান.মান্না
একুশ আমার অহংকার প্রানের চেয়েও প্রিয়
একুশ নিয়ে গর্ব আমার হাজার সালাম নিও।
একুশ আমার প্রানের ছোঁয়া শাপলা শিমূল ফুলে
একুশ মানে বুকের রক্ত লাল গোলাপের মাঝে।
একুশ মানে বুকের রক্ত আমার অহংকার
সালাম বরকত রফিক জব্বা ওদের জিবন যার।
ওদের রক্তে আমরা পেলাম মায়ের মুখের ভাষা।
তাদের জন্য রইলো মোদের প্রানের ভালোবাসা।
একুশ মানে আমার মায়ের মিষ্টি সুরের কথা
হাজারো কান্নার মাঝে মাথায় মায়ের হাত রাখা।
একুশ মানে ভোর বিহনে পাখির কিচির মিছি।
শত ক্লান্তির মাঝেও ফিরে পাওয়া মায়ের মুখের হাসি।
একুশ মানে হৃদয় খুলে মাকে ভালোবাসা
একুশ মানে মায়ের বুকে মুখ লুকিয়ে থাকা
২১/০২/২০১৮

১৫
মুনাজাত
এম.এ.মান্নান.মান্না
আর কত দিবে তুমি প্রভু
আমাদের লাঞ্চনা।
আর কত সইবো মোরা
যুলমবাজদের গঞ্জনা।
জানি আমরা করেছি অপরাধ
মানিনি তোমার বানী।
তাইতো আমরা পাচ্ছি এখন
লাঞ্চনা গঞ্জনা ঝরছে চোখের পানি।
আর কত দিবে শাস্তি তুমি
নেই কি মোদের ক্ষমা।
জ্ঞান পাপিদের হাত হতে মোদের।
রক্ষা করো প্রভু এই মোদের প্রাথনা।
২৯/০৯/০১০ইং

১৬
শপথ
এম.এ.মান্নান.মান্না
তোমরা কি উঠবে না জগেে
না কি থাকবে এখনো ঘুম।ে
আমার ভাইয়রে রক্তে রন্জি হলো দশে
তোমরা কি জাগবে না এখনো,
নাকি থাকবে নশিার ঘোর।ে
রক্তে হোলি খলো খলেছে তারা
আমরা মুসলমি বল।ে
তবুও কি আমাদরে হবে না চতেনা
মুসলমি ভাই বোনরে কান্না দখে।ে
জগেো উঠো সবাই উমররে ঐ চতেনায়
হাতে নয়িে নগ্ন তলোয়ার।
প্রতশিোধ নতিে হবে ঐ তাদরে থকেে
যারা মরেছেে আমার জ্ঞাতী ভাই।
জগেে উঠো সবাই বুকে নয়িে হম্মিত তাড়াবো ঐ কাফরেরে দল
হাতে হাত রখেে শপত নয়িে বুকে হম্মিত নয়িে সামনে চল।

১৭
শহিরন
এম.এ.মান্নান.মান্না
তোমাকইে দখেইে এবুকে শহিরন জগেছেলি
থরথর করে কপেছেলি বুক।
একটু কাছে এলে তুমওি শুনতে পতেে
বুকরে ধুকধুকানী।
কনে যে এমন হয় ভাবতে পারনিা কছিুতইে
কবেলী মনে হয় তুমি চলে যাও দুরে বহু দুর।ে
তোমাকে হারাবার ভয় কনেো এমনে লাগে
কছিুতইে ভাবতে পারি না।
অনকেদনি তোমার সাথে মন খুলে
কথা বলতে পারি না।
কনেযে মনে হয় চলে গছেো বহু দুরে
তোমাকে হারানোর ব্যাথা মৃত্যুর যন্ত্রনা সম
দোহাই তোমার প্রয়িতমা চলে যওেনা,
মৃত্যরে গহবরে আমাকে রখেে
ফরিে এসো প্রয়িতমা চলে যওেনা
আমায় নঃিস্ব কর।ে
তোমাকে ভাবতে দুচোখে ভরে যায় জলে
কনেো মথ্যিা ভালোবাসা দলি।ে
আমার এমন কড়েে নিল।ে
তবে তুমি ক?ি সুখি হতে পারবে
আমাকে দুঃখ দয়িে এহৃদয় ভঙ্গে।ে
তবে সুখে থাকো দোয়া করি
আমি হয়তো কাঁদবো কোন নঃিস্ব অরণ্য।
যখোনে ভালোবাসা নইে, নইে কোন প্রতারণা
সে খানে আমি রবো শুধু তোমারী অপক্ষোয়।

১৮
হৃদয়রে র্আতনাত
এম.এ.মান্নান.মান্না
কোকলিরে কন্ঠে কনে আজ শুনতে পলোম
কাকরে কন্ঠরে মত।
যে কন্ঠে আজ হৃদয় আমার
করয়িাছে হাজার ক্ষত।
হৃদয়রে আঘাত দখোনো যায় না
কখনো কোন কাল।ে
তাহাতে কবেল রক্তই ঝরে
বন্দিু বন্দিু কর।ে
এমনতো কোনদনি আশা করনেি
বজেে উঠবে দুঃখরে বীন।
ভবেছেি আমি তোমাকে নয়িে
থাকবো চরিদনি।
যে কণ্ঠ আজ তোমার
আসতে চয়েছেে মোর কান।ে
আমতিো কোনদনি ব্যথা দইে নাই
তোমার সইে চোট্র মন।ে
তোমার কণ্ঠ শুনে আমার
হৃদয়ে ঘরিছেে স্তব্দ ভরা রাত।
ক্ষনে ক্ষনে বজেে উঠে
আমার হৃদয়রে র্আতনাত।

১৯
আঘাত
এম.এ.মান্নান.মান্না
চাকুর আঘাতরে ঘাঁ শুকয়িে যায়
দাওয়াই দলিে তাত।ে
হৃদয়রে মাঝে আঘাত দলিে কখনো
শুকায় না কোনো কছিুতইে।
চাকুর আঘাত দহেে লাগে
রক্ত পড়ে তাত।ে
কথার আঘাত হৃদয়ে লাগে
অশ্রু ঝরে দুচোখ।ে
চাকুর আঘাতে অসুধ দওেয়া যায়
হৃদয়রে আঘাতে নয়।
হৃদয়রে আঘাতে কবেলী শুধু
ভালোবাসা চায়।
চাকুর আঘাতে যতই কাটে
এটা আঘাত নয়।
মনরে আঘাত সবচয়েে বড়
পুরুন হবার নয়।

২০
শীলা
এম.এ.মান্নান.মান্না

আমি কবি তুমি মোর কবতিা
তুমি আমার গল্পওে গানে
তুমি মোর প্রমেরেী মনকিা।
ঋতু না এলে কখনো ফুল
বনে ফুটনো।
তুমি না এলে জবিনে আমার
কবতিা কখনো লখিা হতো না।
বলছেলিে তুমি আমি কবি
নজিকেে আমি পারনিা বুঝতিে
আমি শুধু তোমাকইে ভাব।ি
তুমি এলে কবতিা হয়ে আমারী এ জবিনে
হাজারো গল্পে তুমি
আছো তুমি হৃদয়ে জুড়।ে
আমি কবি তুমি মোর কবতিা
তুমি আমার প্রথম প্রমে প্রথম ভালোবাসা
তুমি আছো হৃদয়ে ওগো মোর শীলা।

২১
তুমি কি পারবে ভুলে যতেে
এম.এ.মান্নান.মান্না
তুমি কি পারবে ভুলে যতেে
পারবে কি তুমি মুছে দতি।ে
যে নাম আকাঁ আছে তোমার মনে
পারবে কি সত্যি তা ভুলে যতেে
আমার ভালোবাসা।
না না তুমি পারবে না এতটা নষ্ঠিুর হতে
পারবে না তুমি আমার হৃদয় ভঙ্গেে
চলে যাবে তুমি দুওে বহু দুর।ে
জানি তুমি অভমিান করে আমার সাথে
তুমি কষ্ট পাবে আর তা আমাকওে দবি।ে
যখন তুমি নরিবে একলা থাকবে
তখন আমার স্মৃতি তোমার মন।ে
বার বার ভসেে উঠবে তখন শুধু তুমি
নরিবে চোখরে জল ফলেব।ে
তুমি কি পারবে আমায় ভুলে যতেে
ঈারবে কি মুছে দতিে অততিরে সইে দনি গুলো,
আমার ভালো মন্দ আচার ব্যাবহার গুলো
এক বারও কি তমোর মন নাড়া দবিে না।
তখন তুমি হৃদয়রে যন্ত্রনায়
কুড়ে কুড়ে মরবে আর চোখরে জল ফলেব।ে
এখনো কি তোমার মনে পড়ে না ঐ সব স্মৃতি
ঐা হারয়িে ফলেছেি অনকে আগ।ে
আমি জানি প্রয়িা তুমইি বশেী কষ্ট পাবে আমাকে ভবেে
তবুও কি তুমি পারবে আমায় ভুলে যতে।ে
আমি না হয় আর তোমার কাছে যাবনা
তোমার মনরে কষ্ট বাড়াতে চাই না,
তবুও কি তুমি পারবে আমায় ভুলে যতে।ে
মানুষরে গঞ্জনা,বঞ্চনা, বদনাম
অনকে শুনছেি তোমায় ভালোবসে।ে
তবুও কি থমেে যাব,েআমার মন হারয়িে যাবে
ঘারয়িে যাবে আমার ভালোবাসা।[
যতদনি থাকবে মন,থাকবে দহেে রক্ত
ততদনি রবে তোমার আমার ভালোবাসা।
তবুও পারবো না তোমায় ভুলে যতেে
থাকবে শুধু তুমি আমারী পাশ।ে
২৩/১১/১৪ ইং
২২
ঈমান
এম.এ.মান্নান.মান্না
চারিদিকে মানুষ শুধু
ঝরায় চোখের জল।
দুহাত তুলে প্রভুর কাছে
বলে অবিরাম।
জালিম শাহীর মসনদে বসেছে
অত্যাচারী শাষক।
খোদাদ্রোহী জালিম শাহীর
অত্যাচার চলবে কতকাল।
তুমি প্রভু মদদ দাও
শক্তি দাও ইমান করো বলিয়ান।
শত অত্যাচারে যেন নাহি ভুলি তোমায়
দাও সে সাহস মনে,দাও সে ইমান।
৩০/০৯/২০০০ইং

২৩
আজানের ধ্বনী
এম.এ.মান্নান.মান্না

নিরব নিস্তব্ধ গভীর রজনীতে
থাকে মানুষ ঘুমে বিভোর।
মৃতসম সেই যামীনি ভেঙ্গে
ভেসে আসে আজানের ধ্বনী।

বিধাতার বড়ত্ব প্রকাশ করিয়া থাকে
মসজিদের মিনার হতে ঐ মুয়াজ্জিন।
শিতল বাতাস বয়ে দেয় স্নেহে
স্বগীয় সেই আজানের সুর।

খোদার মহীমা শুনে জেগে উঠে ঐ
প্রভুর সৃষ্টি যত।
পবিত্র সমঃ হয়ে তাহার গুনগানে
লূটিয়ে পড়ে সিজদায় অবনত।

আজানের ধ্বনী শুনে জেগে উঠে সবে
করিতে প্রভুর গুনগান।
হে আল¬াহ তুমি কর মোদের ক্ষমা
সুপেছি তোমায় মন প্রান।

২৪
স্বাধীনতা তুমি
এম.এ.মান্নান.মান্না
স্বাধীনতা তুমি একাত্তরের গন হত্যার দৃশ্যবলী
স্বাধীনতা তুমি বিরোধী মত বাধে নির্বিচারে গুলি ।
স্বাধীনতা তুমি শাপলা চত্তুরের রক্তাক্ত জনপথ
স্বাধীনতা তুমি পিলখানায় ভেসে যাওয়া রক্তাক্ত শ্রোত।
স্বাধীনতা তুমি সত্যের পথে থেকে গলায় ফাঁিসর রশি
স্বাধীনতা তুমি আজ গুম খুনের কারসাজি।
স্বাধীনতা তুমি নির্বোধ বোকার মতো দেখে থাকা
স্বাধীনতা তুমি আজ অন্যায় দেখেও না দেখার ভান করা।
স্বাধীনতা তুমি আজ পদে পদে মানুষ লাঞ্চিত হওয়া।
স্বাধীনতা তুমি আজ পদে পদে মানবাধিকার লজ্ঞিত হওয়া
স্বাধীনতা তুমি আজ বিরোধী মত কে নির্বিচারে ধমন করা।
স্বাধীনতা তুমি আজ বুক ফুলে সত্য কথা বলতে না পারা
স্বাধীনতা তুমি আজ স্বাধীন হয়েও পরাধীন থাকা।
তারিখ:-১৩.১২.১৮ ইং

২৫
তুমি নেই
এম.এ.মান্নান.মান্না
তুমি নেই এভুবন যেন লাগে একা
হৃদয়টা শূন্য মনে হয়,
পাইনা তোমার দেখা।
তুমি নেই যেন হৃদয়টা ধুধু মরুভ’মি
নিরব নিস্তব্দ নিবাসে শুধুই আমি একা।
তুমি নেই যেন জিবনটা,অসহ্য যন্ত্রনাময়
বুক চিরে বেদনার দীর্ঘশ্বাস।
তুমি নেই জিবনটা মোর
হারিয়ে গেছে তিমিরে,
কখনোও কি আর ফিরে আসবেনা নিড়ে।
তুমি নেই যেন পাখিরা ডাকেনা
ফুটেনা বাগানে কোন ফুল,
যে হৃদয় ভেঙ্গে গেছে মোর
ফিরে পাবেনা কুল।
তুমি নেই যেন আকাশে আলো নেই
চেয়ে গেছে বেদনার নীলে
অন্ধকারে চেয়ে গেছে দরিত্রী।
তুমি নেই কোথাও, খুজি তোমায়
অরন্যেও সীমাহীন নিলিমায়,
তুমি নেই কেবলী পৃথিবীটা একা মনে হয়।
২৬
ভুলে গিয়ে
এম.এ.মান্নান.মান্না
ভুলে গিয়ে তুমি সুখি হবে
মনে রাখবে না আর মোরে।
স্মৃতির পাতা হতে মুছে যাবো
অবহেলায় রবো দুরে।
এবুকে মোর আশা ছিল
বাঁধবো সুখের বাসা।
সাইমুম ঝড়ে উড়ে গেছে
আমার সকল আশা।
আমাকে ভালোবেশে ভুলে গেছো
ব্যথা পেয়েছি মনে।
আমাকে ভুলে গিয়ে নতুন করে
বাসর গড় তার সনে।
বিধাতার কাছে দোয়া করি বার বার
আমাকে ভুলে গিয়ে।
যার সাথে তোমার হয়েছে প্রণয়
সুখে থাকো তুমি তাকে নিয়ে।

২৭
১৫ ই মে-১৯৯৯ সালে চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের
শহীদ জোবায়ের ভাই স্বরনে
এম.এ.মান্নান.মান্না
হে আলাহর পথের সৈনিক
চলে গেছো তুমি ওপারের ভুবনে।
তবু ও তুমি আজীবন রবে
সবার হৃদয়ের জাগরনে।
ইসলাম মোদের কত যে নেয়ামত
জিবন দিয়ে দেখিয়ে গেলে।
স্বর্গের অন্তিম আবাসে এখন
উড়ো তুমি ডানা মেলে।
তোমার লুহুতে ভিজে গেছে সেদিন
চট্রগ্রামের লোনা মাটি।
তোমার রক্তে উর্বর হয়েছে
হয়েছে পরীপাটি।
তোমার রক্ত নিয়ে প্রতিজ্ঞা করেছি
তোমার মত আমরা ও লড়বো।
জিবন দিয়ে হলে ও আমরা সকালে
ইসলামী সমাজ গড়বো।
২৮

মায়ের স্মৃৃতি
এম.এ.মান্নান.মান্না
মা ্আজ কত দিন হলো তুমি নেই
ঈদ আসে ঈদ যায় শুধু তুমি নেই।
নয়নের জল ধরে রাখা যায় না
ঝরে শুুুধু নিরবে।
চারদিকে মা শুধুু তোমারী স্মৃতি
আছে চড়িয়ে আমারী ঘরে।
নাই শুধুু তুুমি মা চলে গেছো বহু দুরে
শুন্য করে আমারী ঘর।
নিঝুম রাতে মা ঘুম আসে না
কেবলী দেখি তোমারী মায়াবী মুখ।
তুমি ছাড়া সব আছে আমারী
নাই শুধু মা কেবলী এমনে সুখ।
মা মাগো কেনো এমন হয় আমার
বলে দেওনা আমায় স্বপ্নের মাঝে।
তবুুওতো ভুলে থাকতে পারবো মা
তোমার স¥ৃৃৃতি গুলো হৃদয় থেকে।
তারিখ-২৯/০৬/২০১৭
২৯
আজ খুব ইচ্ছে করে
এম.এ.মান্নান.মান্না
আজ খুব ইচ্ছে করে তোমাকে নিয়ে
দুরে কোথাও গিয়ে দুজনে একাকি হাটি।
তোমার পাশাপাশি হেটে হেটে
তোমারী হাত দুটো ধরি।
আজ খুব ইচ্ছে করে তোমাকে নিয়ে
পুুর্র্নিমার চাঁদের আলোয়।
দুজনে পাশাপাশি বসে গল্প করি
তোমার সুন্দর মুখ খানা শুধু চেয়ে থাকি।
তোমার চোখে চোখ রেখে আলতো করে
তোমার রাঙ্গাঁ হাত দুটো ধরি।
আজ খুব বলতে ইচ্ছে করে
তোমার কোলে মাথা রেখে।
তোমাকে আবারও বলি
প্রিয়া আমি তোমায় ভালোবাসি।

৩০
মা
এম.এ.মান্নান.মান্না
আজ বার বার শুধু তোমাকে মনে পড়ে
কেনো যে মা জানি না।
নিরবে কেনযে দুচোখের অশ্রু ঝরে
বুঝিতে পারি না।
তোমার স্মৃতি গুলো মা আমাকে কাঁদায়
নিরবে শুধুু উদাস হয়ে থাকি।
কেন যে মা তুমি অভিমান করে চলে গেলে
আমায় কেন রেখে গেলে একা নিয়ে গেলে না।
মা, আমার মনে হয় তুমি আছো আমার সাথে
প্রতিটি নিশ্বাসে বিশ্বাসে ছাঁয়া হয়ে
তবুও তোমায় পাই না মা জিবনটা শুধু শুন্য মনে হয়।
চারিদিকে সবাই যেন আমার অচেনা লাগে
আমারতো নেই যেন কেউ পাশে।
তবুও অনুভব করি তুমি আছো সর্র্বক্ষন আমারী আশে পাশে
মা তুমি আমায় চেয়ে রেখো প্রতিক্ষনে প্রতি সময়ে।
প্রতিটি দুু:খ কষ্টে যেন পাই মা তোমারী
¯েœহের আচঁল আমারী জিবন সন্ধিক্ষনে।
৮/৮/২০১৭ ইং
৩১
কাবার পথে
এম.এ.মান্নান.মান্না
হাজীদের ঐ যাত্রা পথে আছি দাড়িঁয়ে
যায় তারা ধুলা মাড়িয়ে ।
যাচ্ছে তারা ঐ কাবার পথে
দিচ্ছি তাদের মাঝে একটু সালাম
একটু পৌছে দিও ঐ কাবার ঘরে।
যাবে কি ভাই তোমরা ঐ মদিনার পানে
পৌছে দিও ্্এ অধমের সালাম খানি,
যে খানে শুয়ে আছে প্রিয় নবীজি
তার কাছে পৌছে দিও আমার সালাম খানি।
আমার জিবনে গুনা বেশুমার
করছি সকল পদে পদে।
তাইতো প্রিয় নবীজির চাই সাফায়েত
কঠিন হাসরের দিনে।
১০/০৮/২০১৭ ইং

৩২
দুলাল ভাই চলে গেলেন বলে গেলেন না
এম.এ.মান্নান.মান্না
ভাই চলে গেলেন মনে হয় অভিমান করে
না হয় কি কেউ এভাবে হারিয়ে যায়।
চোখের সামনে থেকে নিরবে নিশ্চুপে
আমাদের একা ফেলে পথহীন গন্তব্যে।
তোমাকে কখনো দেখিনী হার মানতে
চলতে মাথা উচু করে।
নীতির বেড়াজাল ভাঙ্গোনী কখনো
সদা রয়েছো তুমি সততায় অটোল।
তোমার আদর্শ পেয়ে চলেছি আমরা
তোমার দেখানো ঐপথে।
গন্তব্যে পৌছতে পারিনী মোরা এখনো
চলে গেছো তুমি অভিবাবক হীন করে।
আমাদের অবিভাবক ছিলে তুমি
প্রতিক্ষন,প্রতি সময় যখনী চাইতাম তোমায়
সহোযোগিতা,পরামর্শ পেতাম সর্বক্ষন তোমার কাছে।
আজ তুমি নেই চলে গেছো দুরে অনেক দুরে
বুক ফাটা কান্না নিরবে ঝরে দুচোখের জল,
তুমি নেই পাবো না কখোনা তোময়
এমন মানতে খুব কষ্ট হয়।
ভাই তুমি চলে গেছো আমাদের চেড়ে
সুখে থাকো ভালো থেকো
মহান প্রভুর কাছে এটাই মোদের চাওয়া।
৩৩
শ্রাবন
এম.এ.মান্নান.মান্না
কত রাত আমার দুচোখে ঘুম আসেনা
শুধুই অশ্রু ঝরে।
ভালোবাসা দিয়ে তুমি চলে গেলে দুরে
শূন্য রেখে গেলে নীড়ে।
ভালোবাসি ভালোবাসি কত যে বলছো তুমি
আমার দুহাত ধরে।
তোমার অন্তরে আমি আজিবন রবো
ফুলের বাসর গড়বো আমারী নীড়ে।
তোমার প্রেমের ছোঁয়াতে সেদিন
উদ্বেলিত হলো মোর প্রাণ।
পরম আবেশে তোমাকে সেদিন
সুপেছিলাম মোর প্রাণ।
আজ কেন সব ভুলে গেলে তুমি
নিষ্ঠুর প্রিয়ার মতো।
কাঁন্নাই আমার সাথী হলো আজ
হৃদয় করেছো ক্ষত।
রাত নিশিতে মোর ঘুম আসেনা
তোমার কথাই মনে পড়ে।
শ্রাবন ধারার মতো অবিরাম যেন
দুচোখে অশ্র“ ঝরে।
২৬/০৮/২০০৩ইং
৩৪
ভালোবাসা দু:খ
এম.এ.মান্নান,মান্না
ভালোবাসার কেন যে এখনও কাঁদায়
দুচোখে অঝোর ধারায় অশ্রু ঝরে।
মনে হয় এ জিবন কিছুই নয়
ভালোবাসা থেকে যদি দুরে রয়।
তোমাকে হারিয়ে কিধাতা যেন
অবিচার করেছে আমার প্রতি।
এখনো দুচোখের অশ্রুতে আমি
ভেসে চলি অবিরাম নিরোবদী।
তুমিতো ভুলে গিয়ে সুখেই আছো
সাজিয়ে তোমার সুখের নীড়ে।
আমিতো দুখের নদীতে ভেসে
পাইনা খুজে সুখের তীর।
তোমাকে হারাবার বেদনাই বেশী
সহিবার ক্ষমতা নেইযে মোর।
০৩.০৭.২০০৯ ইং

৩৫
অভিমানী প্রিয়া
এম,এ,মান্নান,মান্না
ঘুমাতে গেলেই তোমায়
মনে পড়ে হে প্রিয়তমা।
অশ্রুমাখা নয়ন নিয়ে তাকিয়ে আছো
অভিমানী ভরা মন,কথা বল না।
জানি না কেন তুমি কথা বল নী
অভিমান করে।
ভাবতে গেলেই দুনয়নে মোর
শুধুই অশ্রুঝরে।
ভাবিনী তোমায় দেখবো এভাবে
থাকবে তুমি অভিমান করে।
কি দোষ করেছি আমি পাইনি ভেবে
শুধু দুনয়নে অশ্রুঝরে।
এভাবে যদি ব্যথা দিবে তুমি
কেন মোরে কাছে ডেকে নিলে।
হাসি মুখে এহৃদয়ে
কেন ব্যথা দিলে।
আমার দুনয়নে অশ্রু ঝরায়ে
থাকো তুমি সুখে।
আমি শুধু রবো বেচেঁ
তোমায় স্মৃতি নিয়ে বুকে।
৩৬
বুজতে পারিনী তোমায়
এম,এ,মান্নান,মান্না
বুজতে পারিনী তোমায় কিছুতেই
আমার এই ক্ষদ্র মনে।
তোমার অভিনয় চলার গতী
নিরব ভাষায় কথা বলে আমারী সনে।
অনেক সময় মনে হয় যেন
তুমি শুধু আমারী হবে।
আবার তোমার চলার গতী বুঝিয়ে দেয়
তুমি রয়েছো বহু দুরে।
বুজতে পারিনী তোমায় আমি কিছুতেই
তোমাকে শুধু ভাবতে ইচ্ছে করে।
তোমার ভাষা তোমার হাসি
ভেসে থাকে আমারী অন্তরে।

মায়ের স্মৃৃতি
এম.এ.মান্নান.মান্না
মা ্আজ কত দিন হলো তুমি নেই
ঈদ আসে ঈদ যায় শুধু তুমি নেই।
নয়নের জল ধরে রাখা যায় না
ঝরে শুুুধু নিরবে।
চারদিকে মা শুধুু তোমারী স্মৃতি
আছে চড়িয়ে আমারী ঘরে।
নাই শুধুু তুুমি মা চলে গেছো বহু দুরে
শুন্য করে আমারী ঘর।
নিঝুম রাতে মা ঘুম আসে না
কেবলী দেখি তোমারী মায়াবী মুখ।
তুমি ছাড়া সব আছে আমারী
নাই শুধু মা কেবলী এমনে সুখ।
মা মাগো কেনো এমন হয় আমার
বলে দেওনা আমায় স্বপ্নের মাঝে।
তবুুওতো ভুলে থাকতে পারবো মা
তোমার স¥ৃৃৃতি গুলো হৃদয় থেকে।
তারিখ-২৯/০৬/২০১৭
৩৮
ভালোবাসার দু:খ
এম.এ.মান্নান.মান্না
আকাশ নীল হলে কি হবে
বেদনার ছোঁয়া লাগবে না গায়ঁ।
যতদিন তুমি রবে আমারই পাশে
শত দু:খ বেদনা লুটিয়ে পড়বে এপায়।
আকাশে দেখি অনেক বৃষ্টি
দক্ষিনা আকাশে ঝড়।
তোমার ভালোবাসা পেলে হৃদয়
পাবে না কোনো ভয়।
তোমার দুহাত দরে পাড়ি দেবো
উত্তাল ঐ নীল সাগরে।
তোমাকে নিয়ে বাঁধবো বাসা
নীল সাগরের দ্বীপে।
থাকবে না যেখানে কোন বাঁধা কোন ঝড়
সেখানে শুধু আমরা দুজন।
ভালোবাসা দিয়ে বাধঁবো ঘর
সাঁজাবো দুজনে সুখের ভুবন।
তাং-২০/০৭/২০০৯ ইং
৩৯
অভিমান ভরা মন
এম.এ.মান্নান.মান্না
ঘুমাতে গেলেই তোমায়
মনে পড়ে হে প্রিয়তম।
অশ্রুমাখা নয়ন তোমার
অভিমান ভরা মন কথা বলো না।
জানি না কেন তুমি এমন করো
অভিমান করে।
ভাবতে গেলেই দুনয়নে মোর
শুধুই অশ্রু ঝরে।
ভাবিনী তোমায় দেখবো এভাবে
থাকবে তুমি অভিমান করে।
কি দোষ করেছি পাইনা ভেবে
শুধুই দুনয়নে অশ্রু ঝরে।
এভাবে যদি ব্যথা দিবে তুমি
কেন মোবে কাছে ডেকে নিলে।
হাসি মুখে এহৃদয়ে
কেন ব্যথা দিলে।
আমার দুনয়নে অশ্রু ঝরায়ে
তুমি কি থাকবে সুখে।
আমি শুধু রবো বেছেঁ
তোমার স্মৃতি নিয়ে বুকে।
তাং-২/১২/১৯৯৯ ইং
৪০
বঙ্গঁ কন্যা
এম.এ.মান্নান.মান্না
আকাশ ছোঁয়া সম্মান নিয়ে এলে তুমি
হে মোদের বঙ্গঁ জননী।
তোমাকে পেয়ে মোরা হলাম ধন্য
প্রস্পুটিত হলো এই ধরনী।
তোমাকে পেয়ে এই বাংলা
খুশিতে আত্মহারা।
তোমার অকৃত্রিম ভালোবাসা পেয়ে
সবাই পাগল পারা।
তুমি বঙ্গঁ জননী তুমি হৃদয়ের ফূল
তুমি না থাকলে আমাদের পাশে
আমাদের বেছে থাকা টাই হবে ভুল।
তুমি বঙ্গঁ কন্য তুমি জননী
তুমি মোদের প্রিয়
আমরা তোমায় ভালোবাসি
হৃদয় টেনে নিও।

তারিখ-২৩/০১/২০১৯ ইং

৪১
ক্ষমা কর মোরে
এম.এ.মান্নান.মান্না
ক্ষমা করো মোরে প্রভু হে আমার
তুলেছি তোমার কাছে মোর দুহাত।
ক্ষুদ্র জিবনে গুনা বেশুমার
ক্ষমা তুমি করহে প্রভু করতার।
দিনে দিনে শুধু বেড়েছে বোজা
নেকের পাল্লা হালকা করে।
তুমি বিনে কে করিবে প্রভু
আমার জিবনের গুনা বেশুমার।
নিশিতে ভোরে চাই তোমাকে
একট ুরহম কর।
তোমার রহমত ছাড়া পাবে না ক্ষমা
আমি ক্ষুদ্র এ বান্দা।

৪২
বহু দিন পর
এম.এ.মান্নান.মান্না
বহু দিন পর দেখেছি তোমায়
রয়েছো এখনো আগের মতো,
তোমার দুছোখ এখনো বলে
আমায় তুমি ভালোবাসো।
আজ আমি দেখেছি কেবল
তোমার ঐ দুচোখের কোনে,
বিন্দু বিন্দু জল
যেন শিশিরের কনা।
শুনেছি হৃদয়ের গোমট ভরা কাঁন্না
দুচোখে ঝরে বেদনার নীল,
অসহশ্র হারানো যন্ত্রনা যেন
করে কিল বিল।
তোমার ছোখের চাহনী বলছে
আমায় এখনো ভালোবাসা।
মনের অৎান্তে আমায় তুমি
হৃদয়ে কল্পঁনায় আকোঁ।

৪৩
কখনো করো না একা
এম.এ.মান্নান.মান্না
তোমাকে ছাড়া বাছবো না
ওগো আমার প্রিয়তমা
কখনো আমায় করো না একা
হাত ধরে তুমি বলো না।
তোমার প্রেমের ছোঁয়া পেলে
হাজার বছর পাচঁতে পারি।
তুমি বীনা এ জিবনে
শুধুই বৃথা যাবে।
সত্যে করে বল না প্রিয়তমা
তুমি আমারী হবে।
তুমি মোবে ভাসলে ভালো
পাপিঁয়া গাইবে গান,
সারাটা জিবন তুমি রবে
হয়ে আমারী জিবন।

৪৪
ভালোবাসি বলে দু:খ দিলে
এম.এ.মান্নান.মান্না
ভালোবাসি বলে দু:খ দিলে
দুচোখ শুধু অশ্রু ঝরে।
হৃদয়ের আমার করেছো আঘাত
বিষাক্ত তীর মেরে।
ভাবীনি কখনো এমন করে
আঘাত দিবে তুমি।
তোমায় ছাড়া বুঝি না কিছু
হৃদয় হলো মরুভুমি।
ফিরায়ে দিয়েছো তুমি
আমারী উপহার,
কখনো তুমি ভাবলে না
কি হবে আমার।
অনুরোধ ওগো তোমার প্রতি
ভালোবাসা কখনো করো না ইতি,
না হয় জিবনে আমার কান্নাই হবে সাথী।

৪৫
তোমাকে মনে হয়
এম.এ.মান্নান.মান্না
তোমাকে মনে হয় এমন কিছু
যা দুলর্ভ বস্তুর মতো,
বুঝতে পারি না তোমাকে কিছুতেই
নিরব নিচ্ছল চল অভিরত।
জানি না তোমার মনে কি আছে
একটু ভালোবাসা।
পাবো কি তোমার মন
না কি করবে মোরে নিরাশা।
তোমার জন্যই আমি বার বার
ছুটে আসি,
মনে থাকে একটু আশা
পারো তোমার হাসি।
তোমাকে মনে হয় আমার কাছে
গোলাঁপের পাঁপড়ীর মতো,
তাইতো তোমার কাছে ছুটে আসি অভিরত।

৪৬
ইচ্ছে করে
এম.এ.মান্নান.মান্না
ইচ্ছে করে ডানা মেলে
উড়ে যেতে আঁকাশে,
চারদিকে ফেখম মেলে
দোল খেতে বাতাসে।
ইচ্ছে করে খানিক তরে
চলে যেতে অনেক দুরে,
হঠ্যাৎ করে আসবো ফিরে
প্রজাপ্রতির ডানায় করে।
ইচ্ছে করে চলে যেতে
নীল আকাশের নীলিমায়,
কেউ মোরে পাবে না খুজেঁ
শুন্য এই গঘনটাতে।

৪৭
অপুর্ব লেগেছে তোমায়
এম.এ.মান্নান.মান্না
অপুর্ব আজ লেগেছে তোমায়
আমার এ দুচোখে,
আনন্দের শিহরন বয়ে গেছে
আমারই বুকে।
তোমাকে দেখেই মনে হয়ে ছিলো
তুমিই বেহেস্তের হুর,
তার চেয়ে মিষ্টি লেগেছিলো আরো
তোমারী কন্ঠ শুর।
আকাঁেশর চাঁদ নয়কো তুমি
নয়কো কোন তারা,
তোমাকে দেখেই হৃদয় মোর
হয়েছে দিশেহারা।

৪৮
তুমি নেই
এম.এ.মান্নান.মান্না
ভাগ্য নেই আমার
তোমাকে পাওয়া,
ভুলটাই হলো আমার
তোমাকে চাওয়া।
তোমাকে নিয়ে ভেবেছিলাম আমি
তুমি আমারী হবে,
এমনতো কখনো ভাবীনি আমি
হৃদয় ছিড়ে চলে যাবে।
তোমাকে পাইনি দুখ নেই আমার
তবুও তোমাকে ভালোবসি।
আমাকে বুঝতে পারনী তুমি
তাহাই শুধু ভেবে মরী।
তুমি কখনো আমাকে বুজোনী বুঝতে চেষ্টাও করনী,
এটাইতো আমার দু:খ মনে,
সারাক্ষন হৃদয়ে হবে স্বরনীও।

৪৯
হৃদয়হীনা
এম.এ.মান্নান.মান্না
কখনো তোমাকে ভাবেনী এমন
হবে হৃদয় হীনা।
ভালোকাসা নিয়ে নি:স্ব করে
করবে আমায় ঘৃনা।
তোমার এই নিষ্ঠুর কখনো ভাবেনী
আমাকে ছুড়ে ফেলে দিবে।
ধবংশের অতল গহবরে তুমি
আমায় টেনে নিয়ে যাবে।
তোমার মন বলতে কিছু নেই
তুমি একটা হৃদয়হীনা।
না হয় কেন এত ভালোবাসা দিয়ে
আমায় করো ঘুনা।
হৃদয়হীনা তুমি হৃদয়হীনা
কখনো আর কাছে এসো না।
ঘৃনা করো শুধু কর ঘুনা
কখনো আমি আর দু:খ পাবো না।

৫০
বন্য হলো অভিসাপ
এম.এ.মান্নান.মান্না
বন্যার তোড়ে ভেসে গেলো
কষ্ঠে ফলানো ফসল,
কৃষকের মুখে নেই হাসি আজ
দুচোখে হতাশার চাঁপ।
অসময়ের বন্যা আসলো তেড়ে
অভিসাপ হয়ে কৃষকের ঘরে,
রক্ত ঝরানো ফসলের মাঠ আজ
ভেসে গেলো বন্যার তোড়ে।
মুখে নেই রাও দুঁচোখ হতাশার চাঁপ
কি ভাবে করবে মোকাবেলা এ অভিসাপ।
হে আল্লাহ তোমার কাছে দু হাত তুলে করি মুনাজাত
আমাদের অপরাধের শাস্তি দিয়েছো,
এবার করো মোদের মাফ।

৫১
একটি কলে জবিনটা করে দলিো এলোমলেো
এম.এ.মান্নান.মান্না
৪.৯.১৭ ইং
টুং টুং শব্দে বজেে উঠলো পাশে রাখা মোবাইলটা
আড় চোখে একটু তাকালাম,
দখেি তোমার সইে পুরানো নাম্বারটা
বুকটা হঠাৎ করে ধক করে উঠলো।
কনেো জাননিা আমার মনে হয়
এটাই আমার ভালোবাসার অনুভুত।ি
অনকে দনি হলো তুমি আমার সাথে কথা বলো না,
মনে হয় অভমিান কর।ে
আমওি অনকে দনি চয়েছেি তোমাকে ভুলে থাকতে পারি না।
মনরে অজান্তে কনেো যে নরিবে তোমার স্মৃতি গুলো আমাকে কাদায়।
আমতিো ভাবতওে পারনিী তুমি আমাকে ফোন করব,ে
তোমার কল দখেে ভাবছি ধরবো নাকি ধরবো না,
ফোনটা বজেইে চলছে বজেইে চলছে আর আমার মনরে ভতির
কমেন জানি করছ।ে ধুক ধুক করে বুকটা কাপছে আমি ভাবতইে পারনিী
তুমি আমায় কল করব।েআনন্দে আমার দুচোখ বয়েে অশ্রু ঝরছলিো।
আমি কখনো তোমার সামনে গয়িে দাড়াতে পারনিী।
বলতে পারনিী আমার মনরে কথা আমি তোমায় ভালোবাস।ি
অবশষেে মনরে মাঝে সাহস করে তোমার ফোনটা ধরলাম,
অপর প্রান্ত থকেে তুমি শুধু এটুকু বললে শমিান্ত একটু আসব,ে
তুমি এমন ভাবে বললে যা আমি তোমাকে না বলতে পারলাম না।
তোমার কাছে ছুটে গলোম, দখেি তুমি দাড়য়িে আছো অন্য আরকেটি ছলেরে সাথ,ে
তাও আমি কোন মাইন্ট করনিী ভাবছি তোমার কোন পরচিতিি হয়তো,
না সব ভাবনা বাদ দয়িে তোমার কথায় চতেনা হলো,
তুমি বললে শমিান্ত আমার বয়িরে র্কাড তুমি আসব।ে
আমাকে দাড়ানো লোকটরি দকিে দখেয়িে বললে ওনি নাকি তোমার,
আচছা তুমি বলতো তখন আমার মনরে অবস্থা কি হয়ে ছলিো,
তখন থকেে আমার জবিন হয়ে গলেো এলোমলে।ে

৫২
কমেন আছো প্রয়িা
এম.এ.মান্নান.মান্না
………৬/৪/১৬ ইং
কমেন আছো আজ খুব ইচ্ছে করে
তোমার খবর জানত।ে
জানি তুমি খুব ভালো আছো
তবুও তোমার মুখে ভালো লাগে তা শুনত।ে
জানি তুমি এখনো নরিবে চোখরে জল ফলেো
একাকী গভীর রাতে সব ভসেে উঠে চোখরে কোন।ে
তখনি নরিবে চোখরে চোখরে জল ফলো ছাড়া
আর কোন গতী নইে তোমার।
প্রয়িা আমওি ভালো নইে যে তোমার মতো
গভীর রাতে নরিব যখন ,চারদকিে নইে কোনো কোলাহল
তখনী তোমার অশ্রুমাখা দুচোখ আমাকে বষিম ভাবে নাড়া দয়ে।
আমি জানি না এটা কমেন ভালোবাসা,কার দোষে এই পরনিত,ি
কি বা দোষে আজ দুজনা দুই দকি,ে নরিব শ্রোতে বয়ে য়ায় অঝর।ে
তবুও তোমায় খুব জানতে ইচ্ছে করে
প্রয়িা জানি না তুমি কি সুখে আছো।
না কি আমার মতো এখনো নরিবে
দুচোখে জল ফলেো অঝরে
তবুও জানতে ইচ্ছে করে প্রয়িা তুমি কমেন আছো।

৫৩
প্রত্যাশা
এম.এ.মান্নান.মান্না
আগামী দিনের কাছে আমাদের রয়েছে
অফুরন্ত জিবনের বাকী প্রত্যাশা।
অনেক দিন মাস বছর হারিয়ে গেলো
আমার জিবন থেকে।
চলে গেলো অনেক চাওয়া না পাওয়ার
জিবনের ব্যর্থতা।
জিবনের অনেক হার জিত দুখ বেদনা
প্রেম ভালোবাসা হাসি কাঁন্না।
নিজ হাতে গড়া সেই জিবনের ডাইরীতে
কত শত ম্মৃতি মনের গহীনে
নাড়া দেয় আমাদের চলার পথে।
চলে যাহা জিবন থেকে আসবে না আর ফিরে
তবুও যেন আমরা যেন যেতে পারি এগিয়ে
সামনের দিন গুলোতে।
আমরা যেন পারি জিবন গড়তে
আগামীর সুন্দর ভবিষৎ।
আমাদের প্রত্যাশা রহিল মহান প্রভুর কাছে
সদা করি মুনাজাত।
৫৪
তুমি আমার ভালোবাসা
এম.এ.মান্নান.মান্না
আজ কতদিন হলো দেখিনি তোমায়
দেখিনি তোমার চাঁদ মাখা মুখ।
তোমারই ভালোবাসায় হারিয়ে গেছি
যেন তোমার মাঝে খুজে পাই সব সুখ।
তুমি আমার হৃদয় জড়িয়ে আছো
আছো তুমি মনের মাঝে।
তোমার জন্য যেন আমার সব
উজাড় করে দিয়েছি তোমারী মাঝে।
তুমি আছো হৃদয়ে তুমি থাকবে
তুমি আমার ভালোবাসা হৃদয়ের সুখ।
তোমার জন্য জিবন মরন সবই তোমার জন্য ই সুখ
তোমার জন্যই ভরে যাবে আমার এ বুক।
তোমায় ভালোবাসি থেকো তুমি হৃদয় গহীন কোনে
তোমার জন্য সবই যেন মিথ্যা হয় সর্বক্ষণে।

৫৫
বিদায় লগ্ন
এম.এ.মান্নান.মান্না
চলে যাও তুমি প্রিয়
অশ্রু নয়ন নিয়ে।
গোমরা মুখে নিরবে কেঁদে
দুহাত দিয়ে মুখটা ঢেকে
হারিয়ে যেওনা দুর দুরান্তে।
আমিও পারিনী দরে রাখতে তোমায়
পারিনী দরে রাখতে দুফোটা অশ্রু।
বিদায় বেলায় এত যে কষ্ঠের তা আগে জানিনি
বুজেছে তোমার প্রানে চেয়ে
তোমার দুচোখের অশ্রু দেখে।
নিরবে চোখের জল ফেললে তুমি
তাকিয়ে ছিলে অসহায় অবুঝের মতো
তবু পারিনী তোমায় কিছু বলতে
তবুও চলে গেলে নিরবে…।

৫৬
তোমার কথা মনে পড়ে
এম.এ.মান্নান.মান্না
নিরব নিতব্দ রাতের মাঝে
যখন চারদিক ঘন কালো অন্ধকার,
তখনই আমার মনে হঠ্যাৎ নাড়া দেয়
তোমার আমার অতিতের সেই কথা গুলো।
যখন তুমি আমার দুহাত ধরে বলতে
আমি তোমায় ভালোবাসি।
আজোও নেই মধুর আওয়াজ টুকু
বার বার আমার কানে বেজে উঠে।
তখন আর আমার এ দচোখ বাধা মানে না
নিরবে কেবল অশ্রু ঝবে।
যেন মনে হয় তুমি ছাড়া আমার এ জিবন
কেবলই মিথ্যা মনে হয়।
আমি জানি না কেন যে আজো তোমায়
বার বার মনে পড়ে
মনে পড়ে তোমার হাসি।
আমি ভালোবাসি তোমায় ভালোবাসবো
যতদিন আমার এ বুকে থাকরে প্রান।
আজ তুমি নেই আছো দুরে বহু দুরে
ঐ দুর আকাশের নীল নীলিমায়।
তবুও তোমায় ভালোবাসি হৃদয়ে থাকবে
আজিবন আমার রক্তের সাথে মিশে।

এম.এ.মান্নান.মান্না
সাহিত্যে সাংস্কৃতিক ও ক্রিয়া সম্পাদক
মনোহরগন্জ প্রেসক্লাব।
০১৭১০-৬৯৯৬৭১
এম.এ.মান্নœান.মান্না.কুমিল্লা জেলার মনোহরঞ্জ উপজেলার হাসনাবাদ ইউনিয়নের রামদের পুর গ্রামে এক সম্ভান্ত পরিবারে জম্ম গ্রহন করেন। তিনি ছোট কাল হতেই বিভিন্ন গল্প কবিতা লেখাতে অভ্যস্ত তার প্রথম লেখা কবিতা স্বাধীনতা তুমি নামক কবিতাটি ১৯৯৩ সালে দৈনিক জনতা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এর পর হতে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় এবং বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকায় তার লেখা নিয়মিত প্রকাশিত হয়ে আসছে। এপযর্ন্ত তার দুইটি যৌথ কাব্য গ্রন্থ প্রকাশিত হয়। তিনি ২০০০ সাল হতে সাংবাদিকতা দিয়ে তার কর্ম জিবন শুরু করেন। সাপ্তাহিক লাকসাম বার্তা,সাপ্তাহিক আলোর দীশারী, দৈনিক তরুন কন্ঠ, খবর তরঙ্গ, এ সব পত্রিকায় নিয়মিত তার লেখা কবিতা প্রকাশিত হয়। তিনি মনোহরঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাহিত্য সাংস্কৃতিও ক্রিয়া সম্পাদক দু দু বার বিনা প্রতিদ্বদিতার নির্বাচিত হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

Categories

© All rights reserved © 2022 mannanpresstv.com
Theme Customized BY WooHostBD