1. admin@mannanpresstv.com : admin :
দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনেও দাঁড়িপাল্লা প্রতীক থাকছে না - মান্নান প্রেস টিভি
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০১:৪০ অপরাহ্ন

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনেও দাঁড়িপাল্লা প্রতীক থাকছে না

অনলাইন ডেস্ক
  • Update Time : রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৫৩ Time View

তফসিল ঘোষণার মধ্য দিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ট্রেন ছেড়ে দিয়েছে গত ১৫ নভেম্বর। তবে এই ট্রেনে ইউনিফরম নিয়ে এবারও উঠতে পারবে না বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী।

কেননা, দলটির নিবন্ধন বাতিলে হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের বিরুদ্ধে জামায়াতের করা আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আপিল বিভাগ।
নির্বাচন কমিশন কর্মকর্তারা বলছেন, আপিল বিভাগ জামায়াতের আপিল খারিজ করে দেওয়ায় নিবন্ধন ফিরে পাওয়ার আপাতত সুযোগ নেই। ইতোমধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল আগামী ৭ জানুয়ারি ভোটের তারিখ রেখে তফসিল ঘোষণা করেছেন। এতে মনোনয়নপত্র দাখিলের সময়ও খুব বেশি হাতে নেই।

জানা গেছে, ২০০৮ সালে জামায়াতে ইসলামীকে সাময়িক নিবন্ধন দেওয়ার পরের বছর বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের তৎকালীন সেক্রেটারি জেনারেল সৈয়দ রেজাউল হক চাঁদপুরী, জাকের পার্টির তৎকালীন মহাসচিব মুন্সি আবদুল লতিফ, সম্মিলিত ইসলামী জোটের প্রেসিডেন্ট মাওলানা জিয়াউল হাসানসহ ২৫ জন জামায়াতের নিবন্ধনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট করেন। রিটে জামায়াতের তৎকালীন আমির মতিউর রহমান নিজামী, সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, নির্বাচন কমিশনসহ চারজনকে বিবাদী করা হয়। তারা জামায়াতের নিবন্ধন বাতিলের আরজি জানান।

এ রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হক (পরে প্রধান বিচারপতি) ও বিচারপতি মো. আবদুল হাইয়ের হাইকোর্ট বেঞ্চ ২০০৯ সালের ২৭ জানুয়ারি রুল জারি করেন। ছয় সপ্তাহের মধ্যে বিবাদীদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়। রুলে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন কেন আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত এবং গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৯০ (বি) (১) (বি) (২) ও ৯০ (সি) অনুচ্ছেদের লঙ্ঘন ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়।

নিবন্ধন নিয়ে রুল জারির পর ওই বছরের ডিসেম্বরে একবার, ২০১০ সালের জুলাই ও নভেম্বরে দুইবার এবং ২০১২ সালের অক্টোবর ও নভেম্বরে দুইবার নিজেদের গঠনতন্ত্র সংশোধন করে নির্বাচন কমিশনে জমা দেয় জামায়াত। এতে দলের নাম ‘জামায়াতে ইসলামী, বাংলাদেশ’ পরিবর্তন করে ‘বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী’ করাসহ বেশ কিছু সংশোধনী আনা হয়।

পরে ২০১৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি আবেদনকারীরা এ রুল শুনানির জন্য বেঞ্চ গঠনে প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন করেন। এ আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই বছরের ৫ মার্চ আবেদনটি বিচারপতি এম মোয়াজ্জাম হোসেনের নেতৃত্বাধীন দ্বৈত বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠানো হয়। ১০ মার্চ সাংবিধানিক ও আইনের প্রশ্ন জড়িত থাকায় বৃহত্তর বেঞ্চে শুনানির প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে আবেদনটি প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানোর আদেশ দেন দ্বৈত বেঞ্চ। ওই দিন প্রধান বিচারপতি তিন বিচারপতির সমন্বয়ে বৃহত্তর বেঞ্চ গঠন করে দেন।

২০১৩ সালের ১২ জুন ওই রুলের শুনানি শেষ হলে যেকোনো দিন রায় দেবেন বলে জানিয়ে অপেক্ষমান (সিএভি) রাখেন হাইকোর্টের বৃহত্তর (লার্জার) বেঞ্চ। পরে জামায়াতকে দেওয়া নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নিবন্ধন ২০১৩ সালের ১ আগস্ট সংখ্যাগরিষ্ঠ মতের ভিত্তিতে অবৈধ বলে রায় দেন বিচারপতি এম মোয়াজ্জাম হোসেন, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি কাজী রেজা-উল-হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের বৃহত্তর (লার্জার) বেঞ্চ।

সে সময় সংক্ষিপ্ত রায়ে আদালত বলেন, এ নিবন্ধন দেওয়া আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত। একইসঙ্গে আদালত জামায়াতে ইসলামীকে আপিল করারও অনুমোদন দিয়ে দেন। তবে এ রায়ের স্থগিতাদেশ চেয়ে জামায়াতের করা আবেদন একই বছরের ৫ আগস্ট খারিজ করে দেন আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী। পরে একই বছরের ২ নভেম্বর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হলে জামায়াতে ইসলামী আপিল করে।

ইসি কর্মকর্তারা বলছেন, ২০১৩ সালে হাইকোর্টের ওই রায়ের পর দশম সংসদ নির্বাচনে দলটিকে অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হয়নি। আবার নিবন্ধনও বাতিল করা হয়নি।

সে সময়কার ইসি সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেছিলেন, আদালতের রায় থাকায় নিবন্ধন বাতিলের প্রয়োজন নেই। তবে দলটির নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সুযোগ নেই।

তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে কেএম নূরুল হুদার কমিশন দলটির নিবন্ধন বাতিল করে প্রজ্ঞাপন জারি করে। তৎকালীন ইসি সচিব মো. হেলালুদ্দীন আহমদের ২০১৮ সালের ২৮ অক্টোবর স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর দলটিকে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ অনুযায়ী নিবন্ধন দেওয়া হয়েছিল। দলটি নিবন্ধন নম্বর পেয়েছিল ১৪। কিন্তু একটি মামলার রায়ে হাইকোর্ট ২০১৩ সালে দলটির নিবন্ধন প্রক্রিয়া অবৈধ ও বাতিল ঘোষণা করে। তাই নির্বাচন কমিশন দলটির নিবন্ধন বাতিল করলো।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ অনুযায়ী, নিজ দলের প্রতীক নিয়ে ভোটে অংশ নিতে হলে ইসির নিবন্ধন বাধ্যতামূলক। তাই ওই প্রজ্ঞাপন জারির পর থেকে দলটির নিজের প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এমনকি আদালত জামায়াতের নিবন্ধন বৈধ ঘোষণা করলেও ইসিকে নিবন্ধন বাতিলের আদেশ তুলে নিতে হবে। তবেই দলের প্রতীক নিয়ে ভোট করতে পারবে।

এদিকে কেবল জাতীয় নির্বাচন নয়, স্থানীয় কোনো নির্বাচনেও দলগতভাবে জামায়াতের অংশ নেওয়ার সুযোগ নেই। কেননা, স্থানীয় সরকার নির্বাচন বিধিমালা সংশোধন করে ২০১৫ সালেই কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের কমিশন জামায়তের দাঁড়িপাল্লা প্রতীক বাদ দেয়। এরপর ২০১৭ সালে বাদ দেওয়া হয় সংসদ নির্বাচনের প্রতীকের তালিকা থেকেও। সম্প্রতি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের যে সংশোধীত প্রতীকের তালিকার গেজেট করেছে ইসি, সেখানেও নেই দাঁড়িপাল্লা।

এ নিয়ে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আহসান হাবিব খান ইতোমধ্যে বলেছেন, জামায়াতে ইসলামী আদালতের রায়ে নিবন্ধন হারিয়েছে। তাই দল হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা যেভাবে দাঁড়ায়, যে শর্তগুলো আছে, সেগুলো পূরণ করলে যে কেউ দাঁড়াতে পারবে। সে নিয়ম অনুযায়ীই চলবে। ঢালাও বলতে পারবো না।

ইসি ঘোষিত দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ৩০ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর, রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কমিশনে আপিল দায়ের ও নিষ্পত্তি ৬ থেকে ১৫ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ১৭ ডিসেম্বর। রিটার্নিং কর্মকর্তারা প্রতীক বরাদ্দ করবেন ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনী প্রচার চলবে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত। আর ভোটগ্রহণ হবে ৭ জানুয়ারি (রোববার)।

ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলম জানিয়েছেন, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের পর ব্যালট পেপার ছাপানো হবে। আর মাঠ পর্যায়ে ব্যালট যাবে ভোটের তিন-চার দিন আগে।

বর্তমানে ইসিতে নিবন্ধিত দলের সংখ্যা ৪৪টি। এজন্য দলগুলোর বিপরীতে ৪৪টি প্রতীক সংরক্ষণ করেছে ইসি। আর স্বতন্ত্র প্রার্থীদের জন্য ২৫টি প্রতীক সংরক্ষণ করেছে সংস্থাটি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

Categories

© All rights reserved © 2022 mannanpresstv.com
Theme Customized BY WooHostBD